সোমবার, ২১ জুন ২০২১, ৭ আষাঢ় ১৪২৮

সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আদালতে সোপর্দ: হেনস্তা এবং মামলা দায়েরের ঘটনায় সাংবাদিক সংগঠনসমূহের নিন্দা

  • স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট
  • ২০২১-০৫-১৮ ১০:৫৪:০১
image

সাংবাদিক রোজিনাকে আজ মঙ্গলবার সকাল আটটার দিকে শাহবাগ থানা থেকে ঢাকা মেট্রোপলিটন চীফ ম্যাজিস্ট্রেট (সিএমএম) এর আদালতে নেয়া হয়েছে। সকাল ১১টায় আদালত বসবে। সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে অফিসিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টে মামলা হয়েছে। তিনি বর্তমানে কোর্ট হাজতে আছেন বলে জানিয়েছেন তার স্বামী মনিরুল ইসলাম। 

বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকতা একটি ঝুঁকিপূর্ণ পেশা হয়ে উঠছে। কি দেশে কি বিদেশে সর্বত্রই একই অবস্থা। এই ঝুঁকিপূর্ণ পেশায় থেকেও অনেক সাংবাদিক বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করার চেষ্টা করে থাকেন। আমাদের দেশে সংবাদমাধ্যম কর্মীদের নিয়ে নানা নেতিবাচক কথা শোনা যায়। আজকাল অনলাইন নিউজপোর্টাল বানিয়েও অনেকে সাংবাদিক হয়ে যান। কিন্তু মূলধারার গণমাধ্যমগুলোতে এখনও সাংবাদিকতার মানসম্পন্ন কিছু সাংবাদিক দেখতে পাওয়া যায়। সেরকমই একজন প্রথম আলোর জেষ্ঠ্য প্রতিবেদক সাংবাদিক রোজিনা আলম। তিনি গত কয়েকদিন ধরে প্রথম আলোতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দুর্নীতি নিয়ে ধারাবাহিকভাবে কিছু রিপোর্ট করে যাচ্ছিলেন। গতকাল স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে সংবাদ সংগ্রহের জন্য গেলে সাংবাদিক রোজিনাকে হেনস্তা করা হয় এবং ঘন্টা পাঁচেক মন্ত্রণালয়ের একটি কক্ষে আটকে রাখা হয়। পরে মামলা দিয়ে শাহবাগ থানায় হস্তান্তর করা হয়। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দু'জন নারী কর্মকর্তা সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করেছেন মর্মে অভিযোগ আছে। 

বিভিন্ন গণমাধ্যম সংবাদকর্মী এবং সংগঠনের প্রতিবাদ

প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে সচিবালয়ে পাঁচ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা এবং পরে শাহবাগ থানায় হস্তান্তরের ঘটনায় প্রতিবাদ জানাচ্ছেন বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত সাংবাদিকেরা। এদিকে এ ঘটনায় বিভিন্ন সংগঠন ও সাংবাদিক নেতারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। সোমবার রাতে শাহবাগ থানার ভেতরে অবস্থান নিয়ে সাংবাদিকেরা বিক্ষোভ করেন। তাঁরা রোজিনা ইসলামকে ছেড়ে দেওয়ার দাবি জানান। সাংবাদিকেরা এ ঘটনায় স্বাস্থ্যমন্ত্রী, স্বাস্থ্য সচিবের প্রতি ধিক্কার জানান। সাংবাদিকেরা মন্ত্রী সচিবের পদত্যাগ দাবি করেন। রাত সাড়ে ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিক্ষোভ চলছিল।

সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম সচিবালয়ে পেশাগত দায়িত্ব পালনের জন্য সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে যান। সেখানে বিকেল তিনটার দিকে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা তাঁকে একটি কক্ষে আটক করেন। পরে রাত সাড়ে ৮টার দিকে রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানার পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। রোজিনা ইসলামকে ৯টার দিকে শাহবাগ থানায় নিয়ে যায় পুলিশ। সচিবালয়ে আটক অবস্থায় সাংবাদিক রোজিনা একপর্যায়ে অসুস্থ হয়ে পড়েন। বিভিন্ন গণমাধ্যমের সাংবাদিকেরা প্রথমে সচিবালয়ের সামনে অবস্থান করে বিক্ষোভ করেন। এরপর তারা সেখান থেকে শাহবাগ থানায় চলে আসেন। সেখানে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ-স্লোগান দেন তাঁরা।

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এম আব্দুল্লাহ প্রথম আলোকে বলেন, রোজিনা ইসলামের সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তা ন্যাক্কারজনক। এ ঘটনায় সাংবাদিকেরা উদ্বিগ্ন, ক্ষুব্ধ ও বিস্মিত। স্বাধীন ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা এবং মুক্ত গণমাধ্যমের প্রতি ধারাবাহিক আক্রোশেরই প্রতিফলন। ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান প্রথম আলোকে বলেন, কোনো নিরপরাধ সাংবাদিক যেন হয়রানির শিকার না হয়—সেটা সরকারকে নিশ্চিত করতে হবে। 

নিন্দা জানিয়ে বিভিন্ন সংগঠনের বিবৃতি

বিশ্বব্যাপী সাংবাদিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা নিউইয়র্কভিত্তিক সংগঠন কমিটি টু প্রটেক্ট জার্নালিস্ট (সিপিজে) এক টুইট বার্তায় রোজিনা ইসলামকে আটক এবং পুলিশের কাছে হস্তান্তরের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশে সচিবালয়ে তিনি পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়েছিলেন। তাঁকে অবিলম্বে ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। সিপিজে তাদের টুইটে সচিবালয়ে আটক অবস্থায় অসুস্থ হয়ে মেঝেতে পড়ে যাওয়া রোজিনা ইসলামের একটি ছবিও ব্যবহার করেছে।

জাতীয় পার্টি সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে আটক ও হেনস্তা করার ঘটনায় তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন জাতীয় সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদের। তিনি এক বিবৃতিতে বলেন, মন্ত্রণালয়ের অভ্যন্তরে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে হেনস্তা করার ঘটনায় নিরপেক্ষ তদন্ত প্রয়োজন। তাঁর সঙ্গে যে আচরণ করা হয়েছে তা লজ্জাজনক। তিনি বলেন, স্বাধীন সাংবাদিকতা এবং সাংবাদিকদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব।

বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় একজন নারী সাংবাদিকের ওপর সরকারের স্বাস্থ্য বিভাগের বিভাগের এই আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন মহিলা পরিষদের সভাপতি ফওজিয়া মোসলেম ও সাধারণ সম্পাদক মালেকা বানু।

আইন ও সালিশ কেন্দ্র রোজিনা ইসলামকে আটক ও হেনস্তার নিন্দা জানিয়ে আইন ও সালিশ কেন্দ্র (আসক) এক বিবৃতিতে বলেছে, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশনের মাধ্যমে জনগণের তথ্য পাওয়ার অধিকার নিশ্চিত করতে রোজিনা ইসলাম কাজ করছেন। তিনি তাঁর প্রতিবেদনে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন দুর্নীতি ও অনিয়ম তুলে এনেছেন। এ ছাড়া করোনাকালীন সময়ে জনগণের স্বাস্থ্য অধিকার রক্ষায় মন্ত্রণালয়ের দূর্বলতাগুলোও তাঁর প্রতিবেদনে পরিষ্কারভাবে উঠে এসেছে। এসব প্রতিবেদন নিঃসন্দেহে স্বাস্থ্যখাতে সুশাসন ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। এমন একজন সাংবাদিককে পেশাগত কাজের সময় এভাবে আটক করা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। রোজিনাকে আটকের এ ঘটনা গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত বাজে দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে, যা কোনোভাবেই প্রত্যাশিত নয়।


এ জাতীয় আরো খবর